Ad Clicks : Ad Views :

সচিবকে মারধরের মামলায়, ইউপি চেয়ারম্যানকে গ্রেফতারের ৪ ঘন্টা পর জামিনে মুক্ত

/
/
/

ইউপি সচিবকে মারপিটের ঘটনায় খুলনার কয়রা উপজেলার ৪নং মহারাজপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান উপজেলা আ’লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক মোঃ আব্দুল্লাহ-আল মাহমুদ গ্রেফতারের চার ঘণ্টা পর জামিন লাভ করেছেন।

আরো পড়ুনঃ টাকার জন্য সন্তান বিক্রি করলেন

গত ২১ মার্চ মারপিটের ঘটনার একসপ্তাহ পর ইউপি সচিব মোঃ ইকবাল হোসেন বাদী হয়ে আজ সোমবার (২৮ মার্চ) সকালে কয়রা থানায় মামলাটি দায়ের করেন। মামলায় চেয়ারম্যানসহ অজ্ঞাতনামা আরও ৪/৫ জনকে আসামী করা হয়েছে। যার মামলা নম্বর ১৬। ওই মামলায় ইউপি চেয়ারম্যানকে আটক করে পুলিশ।

আটকের পর ইউপি চেয়ারম্যানকে কয়রা উপজেলা সিনিয়র জুডিশিয়াাল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে প্রেরণ করা হয়। পরে আদালত শুনানী শেষে বিচারক তাকে জামিনে মুক্তি প্রদান করেন।
আজ সোমবার দুপুরে অভিযান চালিয়ে ইউপি চেয়ারম্যানকে স্থানীয় দেয়াড়া এলাকায় নিজ বাড়ী থেকে গ্রেফতার করেছিল পুলিশ।

কয়রা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ রবিউল ইসলাম জানান, আজ (২৮ মার্চ) আহত ইউপি সচিব মোঃ ইকবাল হোসেন বাদী হয়ে ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ্ আল মাহমুদের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত আরও ৩/৪জনকে আসামী করে মামলা (যার নং-১৬) দায়ের করেন। এজাহারনামীয় আসামীকে গ্রেফতার করা হয়।

প্রসঙ্গত্ব, ডাকা মাত্র না আসায় ও বিকাল ৫ পর অফিস করতে অস্বিকার জানাই গত ২১ মার্চ দিবাগত রাতে মহারাজপুর ইউনিয়ন পরিষদের সচিব ইকবাল হোসেনকে বেধড়ক মারপিট করেন ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ্ আল মাহমুদ। তিনি খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

এরপর ইউপি চেয়ারম্যানের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি ও নিরাপত্তার দাবিতে গত ২৩ মার্চ দুপুরে খুলনা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে বাংলাদেশ ইউনিয়ন পরিষদ সচিব সমিতির জেলা শাখার নেতৃবৃন্দ। একই সাথে ইউপি সচিবরা কর্মবিরতীর কর্মসূচিও পালন করেছিল খুলনার ৬৮টি ইউনিয়নে।

  • Facebook
  • Twitter
  • Google+
  • Linkedin
  • Pinterest

Leave a Comment

Your email address will not be published.

This div height required for enabling the sticky sidebar