Ad Clicks : Ad Views :

সুখবরঃ ৪১ হাজার ল্যাপটপ বিদ্যালয়ে বিতরণ করা হবে!

/
/
/

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বিতরণের লক্ষ্যে ২০১ কোটি ৬৫ লাখ ১৯ হাজার টাকা ব্যয়ে ‘ওয়ালটন ডিজি-টেক ইন্ডাস্ট্রিজ’ থেকে ১০টি লটে ৪১ হাজার ল্যাপটপ ক্রয়ের প্রস্তাব অনুমোদন দিয়েছে সরকার। এছাড়া ১৪ কোটি ৫২ লাখ ৫৭ হাজার টাকা ব্যয়ে ‘ গ্লোবাল ব্র্যান্ড প্রাইভেট লিমিটেড’ ১০টি লটে ৪১ হাজার স্পীকার ক্রয়েরও সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

বুধবার (৮ ডিসেম্বর) সচিবালয়ে অনুষ্ঠিত ক্রয় কমিটির ভার্চুয়াল সভায় এসব প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়। অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন।

বৈঠকে সাড়ে ৪২ মেগাওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন বর্জ্য বিদ্যুৎ প্রকল্প এবং মোট ১৭৮ মেগাওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন তিনটি সোলার পার্ক স্থাপনসহ ১৬টি প্রস্তাব অনুমোদন দিয়েছে ‘সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি’। এতে মোট ব্যয় হবে ২২ হাজার ১৫৬ কোটি ৯৭ লাখ ৪১ হাজার টাকা।

বৈঠক শেষে এক ভার্চুয়াল ব্রিফিং-এ অর্থমন্ত্রী জানান, বৈঠকে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের কাউলতিয়া এলাকায় সাড়ে ৪২ মেগাওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন বর্জ্য থেকে বিদ্যুৎ প্রকল্প স্থাপনের একটি প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়েছে। বিদ্যুৎ প্রকল্পটি স্থাপন করবে চীনা প্রতিষ্ঠান ‘ক্যানভেস এনভায়রনমেন্টাল ইনভেস্টমেন্ট কোম্পানি লিমিটেড’। এতে ব্যয় হবে ১৪ হাজার ৪০৮ কোটি ১ লাখ টাকা।

তিনি জানান, বৈঠকে মোট ১৭৮ মেগাওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন তিনটি সোলার পার্ক স্থাপনের অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে পাবনা জেলার সুজানগর উপজেলাধীন সাগরকান্দি ইউনিয়নে ৬০ মেগাওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন সোলার পার্ক স্থাপন করবে ‘বাংলাদেশ-চায়না রিনিউয়েবল এনার্জি কোম্পানি প্রাইভেট লিমিটেড’। এতে ব্যয় হবে ১ হাজার ৬৪৯ কোটি ১২ লাখ টাকা।

চুয়াডাঙ্গা জেলার জীবননগর উপজেলাধীন কৃষ্ণপুর মৌজায় ৫০ মেগাওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন সোলার পার্কটি স্থাপন করবে সিঙ্গাপুরের কোম্পানি ‘সাইক্লেক্ট এনার্জি পিটিই লিমিটেড’। বিশ বছর মেয়াদে এতে ব্যয় হবে ১ হাজার ৩২২ কোটি ৪০ লাখ টাকা।

সিরাজগঞ্জ জেলার সদর উপজেলায় ৬৮ মেগাওয়াট ক্ষমতার সোলার পার্কটি স্থাপন করবে ‘বাংলাদেশ-চায়না রিনিউয়েবল এনার্জি কোম্পানি প্রাইভেট লিমিটেড’। বিশ বছর মেয়াদে এতে ব্যয় হবে ১ হাজার ৭৯৮ কোটি ৪৮ লাখ টাকা।

অর্থমন্ত্রী জানান, এছাড়া ভোলা জেলার মনপুরা উপজেলার মনপুরা দ্বীপে ৩ মেগাওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন সোলার-ব্যাটারি-ডিজেল সম্বলিত হাইব্রিড বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপনের একটি প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এটি স্থাপন করবে ‘ওয়েস্টার্ন রিনিউয়েবল এনার্জি প্রাইভেট লিমিটেড’। এতে ব্যয় হবে ৪৫৯ কোটি টাকা।

তিনি জানান, বৈঠকে বিসিআইসি কর্তৃক মোট ৯০ হাজার মেট্রিক টন ইউরিয়ার সার আমদানির তিনটি পৃথক প্রস্তাব, বিএডিসি কর্তৃক মোট ৯০ হাজার মেট্রিক টন এমওপি সার আমদানির তিনটি পৃথক প্রস্তাব এবং বিসিআইসি কর্তৃক ৩০ হাজার মেট্রিক টন ফসফরিক এসিড আমদানির ১টি প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

এসব প্রস্তাবের মধ্যে রাষ্ট্রীয় পর্যায়ে চুক্তির আওতায় সংযুক্ত আরব আমিরাত-এর ‘ফার্টিগ্লোব ডিস্ট্রিবিউশন লিমিটেড’ ৩০ হাজার মেট্রিক টন বাল্ক গ্র্যানুলার ইউরিয়া সার আমদানিতে ব্যয় হবে ২৪৮ কোটি ১০ লাখ ৫৬ হাজার টাকা; কাতার-এর ‘মুনতাজাত’ থেকে ৩০ হাজার মেট্রিক টন ব্যাগড প্রিল্ড ইউরিয়া সার আমদানিতে ব্যয় হবে ২৫০ কোটি ৯৩ লাখ ৮৭ হাজার টাকা এবং সৌদি আরব-এর সাবিক থেকে ৩০ হাজার মেট্রিক টন বাল্ক গ্র্যানুলার (অপশনাল) ইউরিয়া সার আমদানিতে ২৪৮ কোটি ১০ লাখ ৫৬ হাজার টাকা ব্যয় হবে।

অন্যদিকে ‘কানাডিয়ান কমার্শিয়াল কর্পোরেশন’ থেকে ১ম ও ২য় লটে ৩০ হাজার মেট্রিক টন করে ৬০ হাজার মেট্রিক টন এমওপি সার আমদানিতে ব্যয় হবে যথাক্রমে ১৪৬ কোটি ৮০ লাখ ৩৫ হাজার টাকা এবং ১৫৯ কোটি ৩ লাখ ৭১ হাজার টাকা; রাশিয়ার ‘জেএসসি ফরেন ইকনোমিক এসোসিয়েশন’ (প্রোডিনটর্গ) থেকে ১ম লটে অবশিষ্ট ৩০ হাজার মেট্রিক টন এমওপি সার আমদানিতে ব্যয় হবে ১৫৯ কোটি ৩ লাখ ৭১ হাজার টাকা।

এছাড়া সংযুক্ত আরব আমিরাত-এর দুটি প্রতিষ্ঠান ‘মেসার্স সান ইন্টারন্যাশনাল এফজেডই’ (লোকাল এজেন্ট: এগ্রো ইন্ডাস্ট্রিজ ইনপুট, ঢাকা) থেকে ১০ হাজার মেট্রিক টন এবং ‘মেসার্স জেনট্রেড এফজেডই’ ইউএই (লোকাল এজেন্ট: মেসার্স দেশ ট্রেডিং কর্পোরেশন, ঢাকা) থেকে ২০ হাজার মেট্রিক টন অর্থাৎ ৩০ হাজার মেট্রিক টন ফসফরিক এসিড আমদানিতে মোট ব্যয় হবে ২১৫ কোটি ৪৪ লাখ ৩৮ হাজার টাকা।

অর্থমন্ত্রী জানান, বৈঠকে অন্যান্যের মধ্যে ‘বাংলাদেশ রেলওয়ের রোলিং স্টক অপারেশন উন্নয়ন (রোলিং স্টক সংগ্রহ)’ প্রকল্পের প্যাকেজ নং জিডি-৪-এর আওতায় ৫৮০টি মিটারগেজ ওয়াগন ক্রয়ের একটি প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এটি সরবরাহ করবে চীনা প্রতিষ্ঠান ‘সিআরআরসি শেনডং কোম্পানি লিমিটেড’। এতে ব্যয় হবে ৩৯৭ কোটি ৭২ লাখ ৪৬ হাজার টাকা।

এছাড়া ভারতের ‘হিন্দুস্তান ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড’ থেকে ‘বাংলাদেশ রেলওয়ের রোলিং স্টক অপারেশন উন্নয়ন (রোলিং স্টক সংগ্রহ)’ প্রকল্পের প্যাকেজ নং জিডি-৫-এর আওতায় ৪২০টি ব্রডগেজ ওয়াগন ক্রয়ের একটি প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এতে ব্যয় হবে ২৮৮ কোটি ৫৪ লাখ ৬০ হাজার ৯২২ টাকা।

পিপিপি’র আওতায় হবে ‘ঢাকা ইস্ট-ওয়েস্ট এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে’

অর্থমন্ত্রী জানান, ক্রয় কমিটির বৈঠকের আগে ‘অর্থনৈতিক বিষয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি’র বৈঠকে ঢাকা ও এর পার্শ্ববর্তী এলাকায় যানজট নিরসনে ‘ঢাকা ইস্ট-ওয়েস্ট এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে’ প্রকল্পটি ‘পাবলিক-প্রাইভেট পার্টনারশীপ’ (পিপিপি) ভিত্তিতে বাস্তবায়নের নীতিগত অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

  • Facebook
  • Twitter
  • Google+
  • Linkedin
  • Pinterest

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This div height required for enabling the sticky sidebar